পশ্চিমবঙ্গে বিচ্ছিন্ন সহিংসতায় শেষ হলো লোকসভা নির্বাচন

A+ A- No icon

ভারতের লোকসভা নির্বাচনের শেষ দফায়ও বিচ্ছিন্ন সহিংসতা হয়েছে পশ্চিমবঙ্গে। এতে বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। এদিন মোট সাতটি রাজ্য ও একটি কেন্দ্রশাসিত অঞ্চলের ৫৯টি আসনে ভোটগ্রহণের মধ্য দিয়ে শেষ হয় লোকসভা নির্বাচনের সপ্তম ও শেষ দফা। ফল ঘোষণা করা হবে ২৩শে মে। ভোট শুরুর কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই গোলমালের খবর এসেছে কলকাতা থেকে। তৃণমুল কর্মীদের আক্রান্ত হওয়ার দাবি করেন বিজেপি প্রার্থী রাহুল সিনহা। এছাড়া ইসলামপুরে বিধানসভার উপনির্বাচনে তৃণমুল প্রার্থী মদন মিত্রের উপর হামলার অভিযোগ ওঠে বিজেপির বিরুদ্ধে।


পশ্চিমবঙ্গে এবার একজন বিশেষ পর্যবেক্ষক এবং বিশেষ পুলিশ পর্যবেক্ষকের ব্যবস্থা করে নির্বাচন কমিশন। এই দুজনের নেতৃত্বেই হয় ভোট। রাজ্যের ন'টি কেন্দ্রে ৭১০ কোম্পানি কেন্দ্রীয় বাহিনী মোতায়েন করা হয়। তবু আগে দফাগুলোর মতোই ঠেকানো যায়নি সহিংসতা। ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রী নির্মলা সীতারমণ দাবি করেছেন পশ্চিমবঙ্গের পরিস্থিতি এতটাই উদ্বেগজনক যে এখানে ভোট শেষ হওয়ার পরও কেন্দ্রীয় বাহিনী রেখে দিতে হবে। তাঁর দাবি ভোট গণনা পর্যন্ত রাজ্যে বাহিনী থাকুক।


তিনি বলেন, ‘আমরা আশঙ্কা করছি ভোট মিটে গেলেই তৃণমূল পরিকল্পিতভাবে সন্ত্রাস করবে। আর তাই কেন্দ্রীয় বাহিনীর উপস্থিতি প্রয়োজন। তৃণমূল সন্ত্রাসের পথ থেকে সরে আসেনি। সকলেই জানে রাজ্যে কারা সন্ত্রাস করছে।' রাজ্য হিসেবে পশ্চিমবঙ্গের নির্বাচন প্রথম থেকেই অধিক গুরুত্ব পেয়ে আসছে। নিজেদের খাস তালুক কয়েকটি রাজ্যে এবার বিজেপি কিছুটা ব্যাক ফুটে রয়েছে বলে মনে করে রাজনৈতিক মহল। আর সেই জায়গা থেকেই ওড়িশা এবং পশ্চিমবঙ্গের মতো রাজ্যকে টার্গেট করেছে গেরুয়া শিবির। তাই পশ্চিমবঙ্গের ৪২টি আসনে ভালো ফল করতে মরিয়া বিজেপি।


ভারতীয় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও বিজেপি সভাপতি অমিত একাধিকবার সভা করে গিয়েছেন পশ্চিমবাংলায়। অমিতের রোড শো ঘিরে উত্তর কলকাতায় গত সপ্তাহে ভয়াবহ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়। ভোট প্রক্রিয়া শুরুর অনেক আগেই অমিত বলেছিলেন এ রাজ্যের ২৩টি আসনে বিজেপি জিতবে। পাশাপাশি মমতা বলে আসছেন রাজ্য সবকটি আসনেই বিজেপি পরাজিত হবে, জিতবে তৃণমূল।


 

Comment As:

Comment (0)