এবার বিজেপির ‘মিশন বাংলা’

A+ A- No icon

বিজেপির শিক্ষণ শিবিরের শেষদিনে পশ্চিমবঙ্গকে নিয়ে বিশেষ প্রশিক্ষণ বসেছে সংসদ ভবনের একটি প্রেক্ষাগৃহে। যেখানে রাজ্যের আইন-শৃঙ্খলা পরিস্থিতি নিয়ে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী, বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহ এবং দলের জাতীয় কার্যকরী সভাপতি জেপি নাড্ডার সঙ্গে আলোচনায় অংশ নেবেন বিজেপির পশ্চিমবঙ্গের এমপিরা। দলের সংসদ সদস্যদের নিয়ে থেকে দিল্লিতে শুরু হয়েছে বিজেপির দুদিনের এই প্রশিক্ষণ শিবির। যার শিরোনাম দেওয়া হয়েছে অভ্যাস বর্গ। বিশেষ করে দলের নতুন এমপিদের সংসদীয় কাজকর্ম সম্পর্কে প্রশিক্ষণ দিতেই সংসদ ভবনের একটি প্রেক্ষাগৃহে এর আয়োজন করা হয়েছে। 

 

ভারতের অন্যান্য রাজ্যের এমপিদের নিয়ে বসলেও, পশ্চিমবঙ্গের ১৮ সদস্যের বিশেষ প্রশিক্ষণ চলছে। এদিন দলের এমপিদের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী স্পষ্ট নির্দেশ দিয়েছেন, ‘কোনোভাবেই যেন পার্টির সদস্য-সমর্থকদের শুধুমাত্র ভোটে জেতানোর নির্বাচনী যন্ত্র হিসেবে ব্যবহার না করা হয়। দলের এমপিরা যেন মাথায় রাখেন, পার্টির নেতারা পরিশ্রম করেছিলেন এবং সমর্থকরা ভোট দেওয়ার কারণেই তারা নির্বাচনে জিতে সংসদে এসেছেন। কাজেই নিয়মিতভাবে সাধারণ কর্মীদের সঙ্গেও যোগাযোগ রাখতে হবে। কোনোভাবেই যেন অহঙ্কার বোধ না জন্মায়।’

 

এই প্রসঙ্গে শাশুড়ি-বউয়ের উদাহরণ দিয়ে মোদী বলেন, ‘ছেলে যখন বিয়ে করে বউ নিয়ে ঘরে আসে, তখন অনেক সময় শাশুড়ি মায়েরা একটু নিরাপত্তাহীনতায় ভোগেন। ভাবতে থাকেন, তার ছেলে এবার মাকে একটু কম সময় দেবে না তো? এমপিদের ক্ষেত্রেও ব্যাপারটি তাই। তার সংশ্লিষ্ট কেন্দ্রের মানুষেরা অনেক সময়ই ভেবে নেন, এমপি এখন বড় নেতা হয়ে গিয়েছেন।’‘তিনি আর এলাকার সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বলবেন না, তাদের ফোন ধরবেন না। সাধারণ মানুষের এই আশঙ্কা যেন কোনোমতেই সত্যি না হয়, তা নিশ্চিত করতে হবে ওই এমপিকেই।’দলীয় সূত্রের খবর অনুযায়ী, বৈঠকে এমপিদের প্রশিক্ষণের পাশাপাশি পশ্চিমবঙ্গে দলের সাংগঠনিক বিস্তারের ওপর জোর দিয়েছেন উঁচু তলার নেতৃত্বরা। উদ্দেশ্য যেকোনো প্রকারে জিততে হবে পশ্চিমবঙ্গে। তাই ২০২১ সালের বিধানসভা ভোটের নাম দিয়েছে ‘মিশন বাংলা’। এজন্য রাজ্যের এমপিদের প্রশিক্ষণ চলছে।

Comment As:

Comment (0)