নজিরবিহীন বন্যায় ডুবছে ভেনিস

A+ A- No icon

ইতালির রাজধানী ভেনিসে জরুরি অবস্থা জারি করা হয়েছে। গত কয়েকদিন ধরে জোয়ারের পানিতে পর্যটন শহরটি গত ৫০ বছরের মধ্যে সবচেয়ে ভয়াবহ বন্যার কবলে পড়েছে। দোকানপাট, চার্চ ও বাড়ি-ঘরে ঢুকেছে বন্যার পানি। পুরো শহর এক অনাকাঙ্খিত পরিস্থিতির মুখে পড়ায় জরুরি অবস্থা জারির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। দেশটির প্রধানমন্ত্রী গুসেপ্পে কন্তে বলেছেন, তার মন্ত্রিসভা ভেনিসে জরুরি অবস্থা জারির সিদ্ধান্তে অনুমোদন দিয়েছে। এছাড়াও গত মঙ্গলবার থেকে বন্যা শুরুর পর পুরো শহর যেভাবে বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে তা মোকাবিলায় জরুরি পদক্ষেপ হিসেবে সরকারের তরফ থেকে ২০ মিলিয়ন ইউরো তহবিল ছাড়েরও অনুমোদন দিয়েছে মন্ত্রিসভা।


গোটা বিশ্বের পর্যটকদের জন্য সবচেয়ে আকর্ষনীয় শহর ভেনিসে জোয়ারের পানি প্রবেশ করতে শুরু করে গত মঙ্গলবার থেকে। তারপর এখন পর্যন্ত শহরের প্রায় আশি শতাংশ এলাকা বন্যায় নিমজ্জিত। দেশটির জোয়ার পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রের হিসাব মতে, এবার জোয়ারের পানি ১ দশমিক ৮৭ মিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। জোয়ারের পানির উচ্চতা এত বেশি বেড়ে যাওয়ার জন্য জলবায়ু পরিবর্তনকে দায়ী করে ভেনিসের মেয়র লুইজি ব্রুগনারো বলেছেন, এ বন্যা ভেনিসের বুকে স্থায়ী চিহ্ন রেখে যাবে। এদিকে প্রধানমন্ত্রী গুসেপ্পে কন্তে বলেছেন, এবারের এই বন্যা আমাদের প্রাণকেন্দ্রের জন্য বিশাল বড় এক আঘাত।


পানির উচ্চতা রেকর্ড মাত্রায় উপরে ওঠায় পানিতে নিমজ্জিত শহরের বেশিরভাগ ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান এখন বন্ধ। শহরের মানুষের নিত্যকার আড্ডাস্থল ক্যাফেগুলোও বন্ধ। তবে কিছু মানুষকে হাঁটু পানিতে দাঁড়িয়ে কফি খেতে দেখা গেছে। অনেক কাঁচামাল পানিতে ডুবে নষ্ট হয়েছে। পানিতে ভেসে গেছে রেস্তোরাঁগুলোর চেয়ার-টেবিল।


সমুদ্রনগরী হিসেবে পরিচিত ভেনিস সাগরের পানির ওপর গড়ে ওঠা পৃথিবীর একমাত্র ভাসমান শহর। ইতালির এই রাজধানী শহরে রয়েছে অসংখ্য ক্যানেল বা খাল। তাই শহরটির মানুষের যাতায়াতের অন্যতম মাধ্যম নৌযান। প্রতি বছর সাড়ে তিনকোটিরও বেশি পর্যটক সমাগমের শহরের এই বন্যায় বিপুল আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়বে দেশটি।

Comment As:

Comment (0)