আমি ফেসবুকে এক নম্বর : দাবি করলেন ট্রাম্প

A+ A- No icon

মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প গর্বভরে নিজেকে ফেসবুকে বিশ্বের এক নম্বর বলে দাবি করেছেন। আর তার এই দাবির নেপথ্যে রয়েছে ফেসবুকের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার (সিইও) মার্ক জুকারবার্গের মন্তব্য। ট্রাম্প বলেছেন, ফেসবুকের সিইও রাতের খাবার খাওয়ার সময় তাকে বলেছেন, বৈশ্বিক এই প্ল্যাটফর্মে তিনিই (ট্রাম্প) এক নম্বর।


ট্রাম্প বলেন, ‘আমি একদিন মার্ক জুকারবার্গের সঙ্গে রাতের খাবার খেয়েছি। তিনি বলেছেন, আমি আপনাকে অভিনন্দন জানাতে চাই... ফেসবুকে আপনি এক নম্বর।’ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ডানপন্থী রেডিও টক শো উপস্থাপক রুশ লিমবাউয়ের সঙ্গে লাইভ টক শোতে অংশ নিয়ে এসব কথা বলেছেন প্রেসিডেন্ট ট্রাম্প। তবে জুকারবার্গের সঙ্গে তিনি কবে রাতের খাবার খেয়েছিলেন সেবিষয়ে নির্দিষ্ট করে কিছু বলেননি।


ফেসবুকের একজন মুখপাত্র বলেছেন, প্রেসিডেন্ট ট্রাম্পের সঙ্গে ফেসবুক সিইও সর্বশেষ রাতের খাবার খেয়েছিলেন গত অক্টোবরে। সেই সময় বার্তা ছড়ানোর ক্ষেত্রে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের গুরুত্বের ওপর জোর দেন মার্কিন এই প্রেসিডেন্ট। পেশাদার গণমাধ্যমকে একপেশে বলে মনে করেন তিনি। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যম টুইটারে ট্রাম্পের প্রায় ৭ কোটি অনুসারী রয়েছে। লিমবাউকে ট্রাম্প বলেন, এই প্ল্যাটফর্মটি না থাকলে তিনি নির্বাচনে হেরে যেতেন। তিনি বলেন, আমরা সত্য বিষয়টিও বের করে আনতে পারতাম না।


২০২০ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের আগে মার্কিন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমগুলো ভুল তথ্য এবং ভুয়া খবর ছড়ানোর অভিযোগে সমালোচনার মুখে রয়েছে। ট্রাম্প নিজেই ফেসবকু এবং টুইটারের ব্যবহার করে বারবার মিথ্যা বিবৃতি এবং ষড়যন্ত্র তত্ত্ব প্রচার করেছেন। মার্কিন এ দুই প্ল্যাটফর্ম ট্রাম্পকে জানিয়েছে, তারা রাজনীতিকদের মিথ্যা বিবৃতি সরিয়ে ফেলবে না। কারণ এগুলো সংবাদের উৎস ক্যাটাগরিতে পড়ে।


রাজনীতি এবং বিজ্ঞাপন বিবেচনায় ট্রাম্প ফেসবুকে এক নম্বর। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমের জায়ান্ট এই কোম্পানির ওপর রিপাবলিকান দলীয় প্রভাবের অভিযোগও রয়েছে। গত অক্টোবরে হোয়াইট হাউসের ডিনার পার্টিতে ট্রাম্প, জুকারবার্গ ছাড়াও ফেসবুকের বোর্ড সদস্য পিটার থিলও উপস্থিত ছিলেন।


এই ডিনার পার্টির পর ডেমোক্রেট দলীয় সিনেটর ও দেশটির এবারের নির্বাচনে সম্ভাব্য প্রেসিডেন্ট প্রার্থী এলিজাবেথ ওয়ারেন ট্রাম্পের সঙ্গে ফেসবুকের সম্পর্কের স্বচ্ছতা নিয়ে প্রশ্ন তোলেন। এক টুইট বার্তায় ওয়ারেন বলেন, তারা (ট্রাম্প-জুকারবার্গ) কি নিয়ে কথা বললেন?

Comment As:

Comment (0)