সেন্টমার্টিনে পর্যটকদের উপচে পড়া ভিড়

A+ A- No icon

দেশের একমাত্র প্রবালদ্বীপ সেন্ট মার্টিনে দেশি-বিদেশি ভ্রমণপিয়াসী পর্যটকের ঢল নেমেছে। ছুটি উদযাপন করতে পরিবার এবং নিকটজনদের নিয়ে পর্যটকেরা ছুটে আসছেন সেন্ট মার্টিনে। প্রতিদিন প্রায় ৫/৬ হাজার পর্যটক দ্বীপের বিভিন্ন হোটেল মোটেল অবস্থান করছেন বলে জানিয়েছেন হোটেল কর্তৃপক্ষ।  রাত্রিকালীন সমুদ্রের প্রাকৃতিক সৌন্দর্য, ভোরের নির্মল হাওয়া উপভোগ, দ্বীপের নীল জলরাশি, শৈবাল, প্রবাল এবং জীবন্ত কোরাল দেখতে নদী-সাগর পাড়ি দিয়ে হাজারো পর্যটক এখন সেন্ট মার্টিনে অবস্থান করছেন। ইতিমধ্যে দ্বীপের শতাধিক আবাসিক হোটেল এবং কটেজসমূহ পর্যটকে প্রাণচঞ্চল। প্রতিদিন সন্ধ্যায় টেকনাফ বার্মিজ মার্কেটে দেখা যায় উপচে পড়া ভীড়। ছুটি কাটাতে আসা ওসব পর্যটক শুরু থেকেই হোটেলের কক্ষ বুকিং দিয়ে রেখেছেন।


হোটেল-মোটেল ব্যবসায়ীরা বলছেন, বছরের শেষ দিন উদ্যাপন করতে আগে থেকে ভ্রমণপিপাসু পর্যটকেরা সেন্ট মার্টিনের হোটেল এবং কটেজে বুকিং দিয়ে রেখেছেন। এমনকি হোটেল-কটেজ পরিপূর্ণ হলে আগত পর্যটকরা সৈকতের বালিয়াডিতেই রাত কাটাচ্ছেন। সেন্ট মার্টিন ইউপির প্যানেল চেয়ারম্যান আব্দুর রহমান জানান, প্রতি বছর কয়েক হাজার পর্যটক সেন্ট মার্টিনে ছুটে আসেন। নৌ ভ্রমণ এবং দ্বীপে রাত যাপনের মজাই আলাদা। বিশেষ দিনকে স্মরণীয় করে রাখতে পর্যটকরাও নিকটজনদের নিয়ে প্রবালদ্বীপে এসে থাকেন। প্রতি বছরের ন্যায় এবছরও পর্যটকদের বাড়তি চাপ লক্ষ্য করা গেছে। কেয়ারী সিন্দাবাদ, কেয়ারী ক্রুজ অ্যান্ড ডাইন, এলসিটি কুতুবদিয়া, গ্রীণ লাইন, দোয়েল পাখি, এমভি ফারহান, পারিজাত, আটলান্টিকসহ স্পিড বোটে করে পর্যটকেরা সেন্ট মার্টিনে এসেছেন। এদের অনেকে দিনে এসে দিনে সেন্ট মার্টিন ছেড়ে চলে এসেছেন। রাজশাহী থেকে আগত এক পর্যটক বলেন, সেন্ট মার্টিন দ্বীপে রাতযাপন করার শখ ছিল দীর্ঘদিনের। পরিবার নিয়ে প্রবালদ্বীপে ছুটে এসেছি।

Comment As:

Comment (0)