টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে এই স্কুলে যা যা শেখানো হয়

A+ A- No icon

অন্যসব বিদ্যালয়ের সঙ্গে একেবারেই মিল নেই। কারণ, চেয়ার-টেবিলে বই-খাতা নিয়ে বসার বদলে সেখানে ভিন্ন ধরনের শিক্ষা দেওয়া হয়। এলোমেলো হয়ে শিক্ষার্থীরা বসে কিংবা দাঁড়িয়ে থেকে শিক্ষা নেয় সেখানে।  অবাক হওয়ার মতো শোনালেও ঘটনা সত্য যে, ডেনমার্কের কোপেনহেগেন শহরের গ্রিন ফ্রি স্কুলে শিক্ষার্থীদের পড়ানো হয় মজার ছলে।

 

তাদেরকে টেকসই উন্নয়নের লক্ষ্যে এই পৃথিবীতে আরো ভালোভাবে বাঁচার এবং প্রকৃতিকে ঠিক রাখার কৌশল শেখানো হয়। জানা গেছে, ওই বিদ্যালয়ে সেলাই মেশিনের কাজ থেকে শুরু করে কাঠের জিনিসপত্র তৈরি, মোমের ভাস্কর্য, মাটির কাজ, প্লাস্টিকের পুনর্ব্যবহার এবং অন্যান্য ধাতব বস্তু কাজে লাগানোর কৌশল শেখানো হয়। 

 

এর বাইরে সবুজ প্রকৃতি গড়ে তোলা, জৈব সার তৈরি, বাই-সাইকেল সারানো এবং বৃষ্টির পানি সংরক্ষণ করতেও শেখানো হয়।  শহরে কৃষির ওপরও গুরুত্ব দেওয়া হয়। কারণ, সেখানকার শিক্ষার্থীরা বেশিরভাগই শহরের।  ডেনমার্কের চলচ্চিত্রনির্মাতা ফাই অ্যামবো তার মার্কিন বন্ধু কারেন ম্যাকলিয়ানকে সঙ্গে নিয়ে ২০১৪ সালে ওই স্কুল চালু করেন।  ফাই অ্যামবো বলেন, এই পৃথিবীতে মানুষ হয়ে ওঠার ব্যাপারে নৈতিক শিক্ষার দেওয়া হয়।

 

সেই সঙ্গে শিক্ষার্থীদের শেখানো হয়, কিভাবে সবাইকে নিয়ে বাঁচা যায়। নিজের দ্বারা যেন অন্যের কোনো রকম ক্ষতি না হয়, সে ব্যাপারেও শিক্ষা দেওয়া হয়। তিনি আরো বলেন, শুরুতে আমরা কিছুটা শঙ্কার মধ্যে ছিলাম। তবে ধীরে ধীরে শিক্ষার্থী বাড়ছে। এখন আমরা আশাবাদী। এখানে যারা শিখতে আসছে, তারাও আনন্দে সব শেখে এবং পরিবারের লোকজনও সন্তুষ্ট।

Comment As:

Comment (0)