বিয়েতে বর ও কনের সাজ-সজ্জা

A+ A- No icon

বরের সাজ : সুন্দর কনের পাশে সুন্দর বরও সবাই দেখতে চায়। সে কারণে আজকাল কনের পাশাপাশি বরও সাজের বেলায় বেশ এগিয়ে থাকছে। সত্যি বলতে কী, বর ও কনেকে একসঙ্গে সুন্দর দেখলে অতিথিদের চোখও তৃপ্তি পায়। আর তাই এখন রীতিমতো কনের পোশাক বা কনের সাজের সঙ্গে মিল রেখে বরও সাজছেন। বিউটিশিয়ান আনিতা বলেন, বিয়ের আগে কনের মতো বরেরও ফ্রেশ থাকাটা জরুরি।

 

সেজন্য বরের উচিত বিয়ের আগে ফেসিয়াল করা, চুলের যত্ন নেয়া। তবে চুলের কাটিং যেন মুখের আকৃতি অনুযায়ী হয় সেটা দেখা জরুরি। মোটামুটি বরের চেহারায় যেন কোনো ক্লান্তির ছাপ না থাকে সে বিষয়ে নজর রাখা। পাশাপাশি মুখের উজ্জ্বলতা বজায় রাখার জন্যও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া দরকার। তবেই বরকে আরও বেশি সুন্দর দেখাবে।  ফ্যাশন ডিজাইনার আরিফুর রহমান বলেন, বিয়ে বা বৌভাতের জন্য বরের আলাদা আলাদা পোশাক বরকে ভালো দেখাবে।

 

সাধারণত সোনালি, অফ হোয়াইট বা মেরুন রঙের শেরওয়ানি ছেলেরা বেশি পরছেন বা পরেন। তবে এর পাশাপাশি কনের পোশাকের সঙ্গে মিল রেখে বরও যদি পোশাক পরেন, তবে বিয়ের সৌন্দর্য আরও বাড়বে। তবে বরের গায়ের রঙের সঙ্গে মানিয়ে পোশাক পরাটাই খুবই ভালো। এছাড়া বর অনুযায়ী শেরওয়ানি লম্বা বা খাটো কিংবা ডিজাইন বেছে নেয়াটা জরুরি। এমব্রয়ডারি, জরি, কারচুপি বা স্টোনের কাজের শেরওয়ারি বাজারে প্রচুর পাওয়া যায়।

 

তবে খুব ভারি কাজ হলেই যে বরকে ভালো লাগবে কিংবা কম কাজেরটা খারাপ লাগবে এমনটা ভাবা ঠিক নয়। অন্যদিকে বিয়ের অনুষ্ঠানে শেরওয়ানি পরলেও বউভাতে বর যদি স্যুট-টাই বা ফরমাল পোশাকে উপস্থিত হন, তবে সেটা ভালো দেখায়। বৌভাতের অনুষ্ঠানে বর প্রিন্সকোটও পরতে পারেন। সোনালি, রুপালি, কালো, খয়েরিসহ নানা রঙের প্রিন্সকোট বাজারে পাওয়া যায়। চাইলে বানিয়ে নেয়াও যায়। তবে এ পোশাকটাও বরের শরীরের সঙ্গে মানানসই করে পরলে ভালো।

 

পোশাকের সঙ্গে মিল রেখে জুতাটা পরলে যেমন ভালো দেখাবে, তেমনই ভালো দেখাবে হাতঘড়িটা পরলেও। এছাড়া ফ্যাশনের অন্য অনুষঙ্গ হিসেবে গলায় সোনার চেইন বা হাতে আংটি রাখা যেতে পারে। ৪ হাজার থেকে শুরু করে নানা দামে পাওয়া যাবে শেরওয়ানি। চাইলে বানান যাবে। স্যুট-টাইও কেনা যাবে ৪ হাজার থেকে শুরু করে নানা দামে। এটাও বানিয়ে নিতে পারেন। জুতা কেনা যাবে ১ হাজার থেকে ৩ হাজার টাকায়। ঘড়ি ২ হাজার থেকে নানা দামের আছে। গলার চেইন বা আংটি সোনার দাম ও ওজন বুঝে।

 

কনের সাজ : বিয়েতে পানচিনি, হলুদ সন্ধ্যা, বিয়ে, বৌভাতসহ নানা অনুষ্ঠান হয়। তাই সাজে এখন দেখা যায় ভিন্নতা। ট্রেন্ডি, ফিউশন, ট্রেডিশনালসহ একেকদিন একেক ধরনের সাজ বেছে নেন কনে। আবার সাজের ধরনেও থাকে ভিন্নতা। কেউ ন্যাচারাল লুক পছন্দ করেন, কেউ করেন ভারি মেকআপ বা উজ্জ্বল সাজ। একেবারেই ন্যাচারাল লুক ইদানীং ব্রাইডাল সাজের ট্রেন্ড পরিণত হয়েছে। ন্যাচারাল মেকআপে বেইজ মেকআপটা এমনভাবে করা হয়, দেখতে মনে হয় কোনো মেকআপই নেই। এ ধরনের মেকআপের সঙ্গে চোখের সাজটা জমকালো রাখতে পারেন।

 

আগের দিনে লাল শাড়ি, লাল লিপস্টিক আর লালটিপ ছাড়া বউয়ের সাজ ভাবাই যেত না। তবে বউ সাজে এখন এসেছে অনেক রং। তবে লাল ব্রাইডাল সাজের আবেদনই অন্যরকম। শুধু ট্রেডিশনাল নয়, মর্ডান ব্রাইডাল লুকেও লাল কালারে চেহারায় দ্রুত শার্পনেস বের করে আনা যায়। তাই ট্রেডিশনাল হোক, মর্ডান কিংবা ফিউশনই হোক লাল ধাঁচের কনে সাজ আজও অমলিন। বিয়ের সাজে আরও কয়েকটি ধারা এখন মেনে চলা হচ্ছে। যেমন বিয়ের দিন ট্রেডিশনাল বিয়ের শাড়ির সঙ্গে মর্ডান বিয়ের সাজ এখন চলছে।

 

ট্রেডিশনাল শাড়ির সঙ্গে স্মোকি আই মেকআপে বেশ মর্ডান ও জমকালো লুক আনে। এক্ষেত্রে শাড়ির নকশার রঙের সঙ্গে মিলিয়ে আইশ্যাডোর রং নির্বাচন করতে পারেন। স্মোকি আই না চাইলে দুই রং দিয়ে চোখ সাজাতে পারেন। গাঢ় আইশ্যাডোর সঙ্গে লিপস্টিক বেছে নিন একশেড হালকা। ব্লাশন ব্যবহার করুন গ্লসি। বিয়েতে এখন গোলটিপের সঙ্গে খুব ছোট্ট করে হাতে আঁকা আলপনার চল শুরু হয়েছে। এ ধরনের টিপ পরতে পারেন। থিমভিত্তিক বিয়ের সাজও এখন জনপ্রিয়। থিম হিসেবে বিয়ের অনুষ্ঠানের একেক পর্বে বেছে নেয়া হয় একেক রং। বর-কনে সবাই সাজে সেই রঙে।

 

থিমের রংটা যদি খুব উজ্জ্বল হয় তবে মেকআপে হালকা শেড তুলে ধরুন। আর থিমের রং যদি হালকা হয় তবে সাজে উজ্জ্বলতা আনতেই পারেন। সাজটা আলাদা হয়ে ফুটে উঠবে। শাড়ির রং চিরায়ত হলেও চুলের সাজে আধুনিকতা এখন বিয়ের সাজের ট্রেন্ড। সাইটবার্ন, ফন্টসেটিন কার্ল খোলা চুল, ব্লোডাই এখন কনেদের পছন্দ। ফুলের পরিবর্তে চুলের বাঁধনে ড্রাইফুল, পার্ল, স্টোনের ব্যবহারও শুরু হয়েছে। বিয়ের দিন ট্রেডিশনাল সাজপোশাক বেছে নিলে রিসিপশনে ট্রেন্ডি সাজপোশাকে বৈচিত্র্য আসে।

 

তাই বিয়ের দিন শাড়ি পরলেও রিসিপশনে এখন অনেকেই গাউন, সারারা, লেহেঙ্গা, ঘাগড়ার মতো ট্রেন্ডি বা ফিউশন পোশাক পরতে পছন্দ করেন। রঙের ক্ষেত্রে লাল, মেরুনের মতো উজ্জ্বল রং থেকে বেরিয়ে এদিন বেছে নিতে পারেন সোনালি, সফট পিংক, অ্যাশ, হালকা সবুজ, চাপা সাদার মতো সফট রং। পোশাকের সঙ্গে বদলে নিন রিসিপশনের সাজও। এদিন ট্রেন্ডি সাজে বেইজটাকে ন্যাচারাল রেখে সাজের কোনো একটা অংশ হাইলাইট করে সাজটা ফুটিয়ে তুললে ভালো লাগবে।

 

রিসিপশনে হালকা রঙের পোশাকের সঙ্গে সোনালি বা ব্রাউন আইশ্যাডো ব্যবহার করুন। ট্রেন্ডি লুক আসবে। পোশাকের রং হালকা হলে লিপস্টিক বেছে নিন গাঢ় রঙের। এমন সাজের সঙ্গে টুইস্ট, সাইড কার্ল, লুজ বান, ব্লোডাই হেয়ার স্টাইল আভিজাত্য আনবে। আজকাল পার্লারে পানচিনি, হলুদ সন্ধ্যা, বিয়ে, বৌভাতসহ প্রতিটি ব্রাইডাল মেকআপ পৃথকভাবে বা প্যাকেজ হিসেবে করা যায়। প্যাকেজ হিসেবে সাজলে বেশ সাশ্রয় হবে। এক্ষেত্রে বিউটিশিয়ানের সঙ্গে পরামর্শ করে প্রথমেই ঠিক করে নিন কোনদিন কোনভাবে সাজতে চান কিংবা মেকআপের ধরনটা কেমন হবে।

Comment As:

Comment (0)