বিয়ের গয়না

A+ A- No icon

গয়না ছাড়া বিয়ে? সে তো হতেই পারে না! বিয়ের সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা কিংবা পছন্দমতো কন্যা মিলে গেলে তাকে সোনার গয়না দেয়াটা আমাদের দেশের একটি অন্যতম সামাজিক রীতি। তাই গয়নার দাম যতই বেশি হোক না কেন, গয়না ছাড়া বিয়ের কথা কল্পনাও করা যায় না। একটা সময় ছিল যখন কানের দুল, গলার হার ছাড়াও হাতের মান্তাসা, রতনচুড়, টায়রা, টিকলি, তাজ, ঝাপটা এমন নানা রকমের গয়না কনের জন্য তৈরি করা হতো। কিন্তু এখন সোনার দাম বেশি হওয়ায় তা কম হলেও যতটুকু সম্ভব বিয়েতে বন্দোবস্ত থাকে। সেটা যার যার সামর্থ্য অনুযায়ী।

 

তবুও বিয়েতে গয়নার কদর একটুকুও কমেনি। তবে সময়ের পরিবর্তনে এখন কদর বেড়েছে ক্রিয়েটিভ জুয়েলারির। এছাড়া পাথরের ব্যবহারে রয়েছে মিক্স অ্যান্ড ম্যাচ ট্রেন্ড। কারণ সময়ের সঙ্গে তাল মিলিয়ে শুধু সোনার গয়নায় আটকে থাকছে না এখনকার কনে। অনেকেই পছন্দের পাথর দিয়ে গয়না বানিয়ে নিচ্ছে রুপার দোকান থেকে। তারপর তার ওপরে দিচ্ছে সোনার প্রলেপ। এতে যেমন- বিয়ের আয়োজন সাশ্রয়ী হচ্ছে, একই সঙ্গে এ সময়ের ট্রেন্ডের সঙ্গেও থাকা হচ্ছে।

 

অন্যদিকে ছেলেদের গয়নার মধ্যে হাতের আংটি এবং গলার চেনের প্রচলন বেশি। এর বাইরে খুব একটা গয়না পরতে দেখা যায় না ছেলেদের। বর্তমানে ছেলেদের ইয়োলো গোল্ডের চেয়ে হোয়াইট গোল্ড বা প্লাটিনামের আংটিই বেশি পছন্দ। এ তালিকায় ছেলেদের পছন্দের শীর্ষে রয়েছে ব্যন্ড রিং। তবে বিয়েতে শেরওয়ানির সঙ্গে মুক্তা বা অন্য পাথরের তিন লহরের সীতাহার এবং পাগড়িতে ছোট পিন পরার চলও বর্তমানে বেশ জনপ্রিয়। আবার বিয়ের আনুষ্ঠানিকতার জন্য মেয়ের কান, গলা এবং হাতের গয়না লাগবেই।

 

এরপরও গয়নার আরও কিছু অনুষঙ্গ থাকে। যেমন- মাথার টিকলি বা টায়রা, ঝাপটা, নথ, নোলক। তবে সোনার গয়নার দাম যতই বাড়ছে এসব অনুষঙ্গে বিকল্পের দিকে মানুষ ততোই ঝুঁকছে। তাই বিয়ের সময় এখন কেবল সোনার দোকানে নয়, রুপার দোকানগুলোও বেশ জমজমাট হয়ে উঠছে। বেশ ক’বছর ধরেই মানুষের এ বিকল্প খোঁজার প্রবণতা চলছে। বিয়ের গয়নার ফ্যাশনে এখন সবচেয়ে জনপ্রিয় জিনিস হল পাথর। লাল, সবুজ, নীল, হলুদ, রুবি, পান্না, জারকন, নীলা- সবই আছে এ তালিকায়। গয়নার নকশায় এখন এসব পাথরের রাজত্ব চলছে।

 

এ কারণে সবাই পছন্দ মতো গয়না বানিয়ে নিয়ে তাতে পাথর বসিয়ে টেন্ডের সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলছে। আর এতে কিন্তু গয়নার পুরো লুকটাই বদলে যাচ্ছে। এসব পাথরের সঙ্গে মুক্তাও দারুণ চলছে। তবে আপাতত কুন্দলের ব্যবহারই বেশি দেখা যাচ্ছে। আসল কিংবা নকল সব ধরনের গয়নাতেই রয়েছে কুন্দলের ছড়াছড়ি। সোনার গয়নার সঙ্গে মুক্তার যুগলবন্দি সহজেই আকর্ষণ করতে পারে যে কাউকেই। এছাড়া অল্প গয়না থাকলেও মুক্ত বসানো গয়না অনেক বড় দেখা যায়। এতে আভিজাত্যের ছোঁয়াও খুঁজে পাওয়া যায়।

 

বিয়ের বাজারে উচ্চবিত্তের গয়নাতে পছন্দের শীর্ষে রয়েছে হীরা আর হোয়াইট গোল্ড। রুচিসম্মত গয়না ও ছিমছাম ডিজাইন এই দুটি বিষয়কে প্রাধান্য দিয়েই হীরের গয়না বানানো হয়।এসব গয়না কেনার সময় ক্রেতারা গুরুত্ব দেন ফোর সি’র বিষয়টাকে। ফোর সি হল কাট, ক্ল্যারিটি, ক্যারেট এবং কালার। তবে মধ্যবিত্তরাও এখন অনেকেই এনগেজমেন্ট কিংবা ওয়েডিং রিং হিসেবে হীরাকেই বেছে নিচ্ছেন।

Comment As:

Comment (0)