যতনে বাঁধিও চুল, খোপায় বাঁধিও ফাল্গুনী ফুল

A+ A- No icon

মোর কথা যদি মনে পড়ে সখি, যতনে বাঁধিও চুল, আলসে হেলিয়া খোপায় বাঁধিও মাঠের কলমী ফুল। বসন্ত মানেই নানা রঙের ফুলের বাহার। আর পহেলা ফাল্গুনের সাজে ফুল থাকবে না এটা কেমন করে হয়? পহেলা ফাল্গুনে চুলের সাজ মানেই চুলে থাকবে নানা রঙের ফুলের বাহার। তাই আজ আমরা গাল্গুনের চুলের সাজে কিছু চুল বাঁধার নিয়ম ও ছবি দিয়ে চুলের সাজ সম্পর্কে জানাচ্ছি। আপনি আপনার ফাল্গুনের জন্য যেকোনো একটি চুলের সাজ পছন্দ করতে পারেন।


১. প্রথমেই সব চুল ভালোভাবে আঁচড়ে নিন। সামনে যদি ব্যাংস বা লেয়ার স্টাইলে চুল কাটা থাকে তাহলে সেই চুল গুলো বাদ দিয়ে মাথার মাঝখানের চুল গুলোর কিছু নিয়ে বেণি করা শুরু করুন। একদম শেষ পর্যন্ত বেণি করা শেষে একটি চিকোন ব্যান্ড দিয়ে চুল আটকে নিন। বেণিটা আরেকটু আকর্ষণীয় করে তুলতে বেণির প্রথম থেকে শুরু করে মাঝখান পর্যন্ত দুই দিক থেকে হালকা টান দিন। এতে বেণিতে ফোলাভাব আসবে। এবার পেছনের চুলগুলো প্রথমে একটি চিকন রাবার ব্যান্ড দিয়ে আটকে নিন। খোঁপা করার জন্য যে মোটা স্পঞ্জ ব্যান্ড পাওয়া যায় সেটি বাঁধা চুলের ভিতর দিয়ে ঢুকান।

 

বাঁধা চুলগুলো এবার খোপা করতে হবে। তার আগে চিরুনি দিয়ে চুল হালকাভাবে টিজ করে নিন যাতে খোপা করার পর চুলগুলো ফুলে থাকে। আপনার চুল যদি ছোট হয়ে থাকে তবে চুল একবার মোড়ালেই হবে। সবশেষে ভালোভাবে ক্লিপ দিয়ে চুলগুলো আটকে নিবেন। আর যদি বড় চুল হয় তাহলে প্রথম যে খোপা বাঁধার স্টাইলটি দেখান হয়েছে সেটি অনুসরণ করুন। চুল যদি সামনে ব্যাংস বা লেয়ার স্টাইলে কাটা থাকে তবে এই স্টাইলটি বেশ মানিয়ে যাবে। বড় বা ছোট সব ধরনের চুলেই করতে পারবেন এটি।


২. খোঁপা করার আগে কিছু চুল আলাদা করে রেখে খোঁপা করুন৷ এরপর আলাদা করে রাখা চুলগুলো দিয়ে বেণি করে খোঁপার চারপাশে সুন্দর করে জড়িয়ে ক্লিপ দিয়ে ভালো করে আটকে নিন। খোঁপার এক পাশে পরে নিন দুটো হলুদ জিনিয়া। বেণির ভাঁজে ভাঁজে গুঁজে দিতে পারেন ছোট ছোট হলুদ বা সাদা ফুল৷


৩. পিঠজুড়ে খোলা চুলেও হতে পারে বসন্তের সাজ৷ এ ক্ষেত্রে সামনের চুলগুলো রোল করে পেঁচিয়ে একটু ফুলিয়ে কানের পাশে নিয়ে ক্লিপে ভালো করে আটকে নিন৷ এবার মাথার ওপরের চুলগুলো একটু কম্ব করে ছড়িয়ে রাখুন পিঠজুড়ে। কানের পাশে আটকে নিন কাঁঠালিচাঁপা, জারবেরা না হয় দুটো অলকানন্দা ফুল


৪. যারা চুলে বেণি করার কথা ভাবছেন, তাঁরাও বেণিতে ফুলের ব্যবহার করতে পারেন৷ খেজুর বেণি, ফ্রেঞ্চ বেণি, টুইস্ট বেণি, মাথার বিভিন্ন জায়গায় টুইস্ট করে এলো বেণিও খুবই জনপ্রিয় চুলের সাজে। এ রকম বেণি করে সামনের চুলটা কিছুটা কোঁকড়া করে নিয়ে এলোমেলো করে ছেড়ে রাখতে পারেন। বেণির গোড়ায় আটকে নিতে পারেন পছন্দের কোনো বড় আকারের একটি ফুল। আর বেণিতে পেঁচিয়ে নিতে পারেন কাঠবেলীর লহর। লম্বা বেণির ভাঁজে ভাঁজে ছোট ছোট ফুল গেঁথে নিলে চমত্কার দেখাবে।


৫. আপনার সোনামণিকে প্রাচীন রাজকুমারীর সাজে সাজাতে চাইলে আরো একটু ভিন্নতার ছোঁয়া আনতে বেণিতে জড়াতে পারেন বকুল ফুলের মালা। ছোট চুল সামনে একটু কম্ব করে ছেড়ে দিয়ে মাথায় পরে নিতে পারেন নানা ফুলের মিশেলে তৈরি তাজ। এছাড়া বেলিফুল দিয়ে ব্যান্ড বানিয়ে ভিন্নভাবে সাজিয়ে নিতে পারেন। ব্যান্ডের চারদিকে ফুল না দিয়ে একপাশে বেশি করে ফুল গুঁজে ব্যান্ডের বাকি জায়গাটা চেইন কিংবা ফিতা দিয়ে ঢেকে দিতে পারেন। আবার দু’পাশে বেলিফুল গুঁজে ব্যান্ডের মাঝখানটাতেও চেইন বা ফিতা দিয়ে ঢেকে নেয়া যাবে। এ ক্ষেত্রে দু’পাশ থেকে চুল সামনে এনে খোলা ছেড়ে দিলে অথবা ফুলের ব্যান্ডের সঙ্গে চুল খোলা রাখলে বেশি ভালো লাগবে।

Comment As:

Comment (0)