বিজ্ঞানীদের ধারণা ফ্রিজে ২৮ দিন বেঁচে থাকতে পারে করোনাভাইরাস

A+ A- No icon

বিশ্ববিখ্যাত ভাইরোলজিস্ট এবং গবেষণা বিজ্ঞানী ডক্টর ওয়ার্নার গ্রিনে চাঞ্চল্যকর কিছু তথ্য নিয়ে হাজির হয়েছেন। ডক্টর গ্রিনের দাবি, ‘করোনাভাইরাসের প্রকৃতি কিছুটা স্যাঁতস্যাঁতে ধরনের। বেশ কিছু সময়ের জন্য বেঁচে থাকতে পারে এই ভাইরাস।’ ২০১০ সালের আমেরিকান সোসাইটি ফর মাইক্রোবাইলজি-র করা ওই গবেষণার সঙ্গে সম্পৃক্ত ছিলেন না ডক্টর গ্রিনে। তবে তিনিও ওই গবেষণায় উঠে আসা তথ্যের সঙ্গেই কিছুটা একমত।  


প্রতিকারের উপায়:

 

*প্রথমেই মাথায় রাখতে হবে, বাজার বা মাসকাবারি জিনিসপত্র ভালো করে জীবাণুমুক্ত করেই ফ্রিজে ঢোকাতে হবে। এ ছাড়াও আপনার ফ্রিজে যাতে কোনও মতে করোনাভাইরাস ঢুকে আসন গেড়ে না বসে, তার বেশ কিছু উপায় বাতলে দিলেন ডক্টর গ্রিনে।


*একটি বালতিতে অ্যালকোহল যুক্ত কোনও স্যানিটাইজারের সাহায্যে জীবাণুমুক্ত করার তরল তৈরি করতে হবে। গ্রিনের কথায়, ‘করোনাভাইরাস সম্পূর্ণরূপে দ্রবীভূত করতে প্রয়োজন অ্যালকোহল বা সাবান এবং জল।’


*ডক্টর গ্রিনে বাড়িতেই জল এবং ব্লিচের সংমিশ্রণে জীবাণুনাশক তৈরি করে নিতে বলছেন ডক্টর গ্রিনে। তার আরও বক্তব্য, ৪ লিটার জলের সঙ্গে ১/৩ কাপ ব্লিচ মিশিয়ে মিশ্রণটি তৈরি করে নিন। এই উপায় না পেলে গরম জলে কিছুটা সাবান ফেলে দেওয়ার কথাও বলছেন গ্রিনে।


*এবার এই মিশ্রণে একটি শুকনো তোয়ালে ভালো করে ভিজিয়ে নিতে হবে।


*এবার ফ্রিজে যে খাবারের বাক্স বা প্যাকেটগুলো রাখবেন খুব ভালো করে সেগুলিকে ওই তোয়ালে দিয়ে বেশ ভালো করে কয়েকবার পরিষ্কার করতে হবে।


*তার আরও বক্তব্য, ‘যে ভাবে টেবিল বা অন্য কোনও তল জীবাণুমুক্ত করা হয়, সেই ভাবেই জীবাণুমুক্ত করতে হবে এই খাবারের প্যাকেটগুলোর তল।’


*এখানেই শেষ নয়। প্রতিনিয়ত নিয়ম করে ফ্রিজের কন্টেইনারগুলোকে জীবাণুমুক্ত করে যেতে হবে এই পদ্ধতিতেই। প্রতিবার জীবাণুমুক্ত করার পর ভালো করে ধুয়ে ফেলতে হবে হাত। ধুয়ে ফেলতে হবে বাজারের থলিও।

Comment As:

Comment (0)