পাকিস্তানে খেলতে যাওয়ার আগ্রহ অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়কের

A+ A- No icon

২০০৯ সালে লাহোরে শ্রীলঙ্কান ক্রিকেট দলের ওপর ভয়াবহ জঙ্গি হামলার ঘটনার পর থেকেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেটের বাইরে পাকিস্তান। ওই হামলার ঘটনার পর সিরিজ শেষ না করেই দেশে ফিরে যায় লঙ্কান ক্রিকেটাররা। সেই ঘটনার পর আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে এক প্রকার নির্বাসনেই রয়েছে পাকিস্তান। কেউই সে দেশে গিয়ে খেলতে রাজি নয়।

 

নিজেদের দেশে আন্তর্জাতিক ক্রিকেট ফেরানোর জন্য অনেক চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে পাকিস্তান ক্রিকেট বোর্ড (পিসিবি)। ২০১৫ সালে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেট দল প্রথম করাচি সফর করে আসা, পিসিবি আশা করছিল অন্য দেশগুলোও দ্বি-পাক্ষিক সিরিজ খেলতে পাকিস্তানে আসবে।

 

গত তিন বছর ধরে পাকিস্তান সুপার লিগের (পিএসএল) ফাইনাল সহ কিছু ম্যাচও নিজেদের মাটিতে আয়োজন করেছে তারা। যাতে করে দেশটির নিরাপত্তা সম্পর্কে ধারণা নিতে পারে বিদেশি খেলোয়াড়রা। এমনকি আন্তর্জাতিক একাদশের বিপক্ষে একটি তিন ম্যাচের টি-টোয়েন্টি সিরিজিও খেলেছে তারা। যার ধারাবাহিকতায় শ্রীলঙ্কা-ওয়েস্ট ইন্ডিজের মত দেশগুলোও সফর করে এসেছে পাকিস্তানে। তবুও কেন যেন পাকিস্তানভীতি কাটছে না। দেশগুলো গড়িমসি করছে পাকিস্তান সফরে যেতে।

 

আনুষ্ঠানিকভাবে প্রতিপক্ষ দেশগুলো পাকিস্তানে দল না পাঠালেও, ব্যক্তিগতভাবে অনেক খেলোয়াড়ই পাকিস্তানে খেলার জন্য মুখিয়ে রয়েছেন। তাদেরই একজন অস্ট্রেলিয়ার অধিনায়ক অ্যারোন ফিঞ্চ। অন্য খেলোয়াড়দের কাছে সেখানে খেলার গল্প শুনে তিনিও এখন অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছেন, পাকিস্তানে গিয়ে খেলার জন্য। বিশ্বকাপে পাকিস্তানের বিপক্ষে মাঠে নামার আগেরদিন সংবাদ সম্মেলনে এসে ফিঞ্চ বলেন, ‘নিঃসন্দেহে, আমি পাকিস্তানে খেলতে চাই। দেশটা খুবই সুন্দর। সেখানে খেলা ক্রিকেটারদের কাছে দেশটির গল্প শুনে বোঝা যায়, ওখানে খেলাটা কতটা রোমাঞ্চকর হবে এবং তাদের সমর্থকরা খুবই উৎসুক খেলার জন্য। পিএসএল যখন হয়েছিল তখন মুহূর্তের মধ্যে পুরো গ্যালারি ভর্তি হয়ে গিয়েছিল সমর্থকদের দিয়ে। তাদের জন্য ক্রিকেট ফেরা দরকার পাকিস্তানে।’

 

ফিঞ্চ আশা করছেন, শিগগিরই অন্য দেশগুলো পাকিস্তানে দ্বি-পাক্ষিক সিরিজ খেলতে যাবে। এ বিষয়ে তিনি বলেন, ‘আমি নিশ্চিত যে সমস্ত ক্রিকেটীয় দেশ এবং আইসিসির সাথে জড়িত- প্রত্যেকেই তাদের যথাযথ পরিশ্রম করছে, যাতে করে পাকিস্তানের নিরাপত্তা এবং সবকিছু নিশ্চিত করে তাদের ওখানে ক্রিকেটকে ফেরানো যায়।’

Comment As:

Comment (0)