আফগানিস্তানের পারফরম্যান্সের উল্টো পথে হাঁটছে বাংলাদেশ!

A+ A- No icon

চট্টগ্রাম টেস্ট বাংলাদেশ দল নিয়ে চর্চিত রসিকতাটাই মনে করিয়ে দিচ্ছে। বাইশ গজ যেমনই হোক বাংলাদেশ ব্যাটিংয়ে নামলে তা বোলিং পিচ আর বোলিংয়ে নামলে ব্যাটিং পিচ! সাকিব আল হাসানদের পারফরম্যান্সের জন্যই রসিকতাটুকু যথার্থতা পাচ্ছে। তার আগে এটুকু বলে রাখা ভালো, চট্টগ্রাম টেস্ট জিততে বাংলাদেশকে ঘরের মাঠে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ রান তাড়ার রেকর্ডই গড়তে হবে—আফগানিস্তান তৃতীয় দিন শেষেই প্রতিপক্ষের জন্য এটুকু চ্যালেঞ্জ নিশ্চিত করেছে!

 

বাংলাদেশ নিজেদের মাটিতে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৪১৩ রান তুলেছে। বাংলাদেশের মাটিতে এটি চতুর্থ ইনিংসে যেকোনো দলের সর্বোচ্চ রান করারও রেকর্ড। সেটি এক যুগ আগে ঢাকায় শ্রীলঙ্কার বিপক্ষে টেস্টে। শেরেবাংলা স্টেডিয়ামে সে ম্যাচে ৫২১ রান তাড়া করে হেরেছিল স্বাগতিক দল। আর ঘরের মাঠে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ১০১ রান তাড়া করে জিতেছে বাংলাদেশ, ২০১৪ ঢাকা টেস্টে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে। সে ম্যাচে অবশ্য জিম্বাবুয়ে জয়ের জন্য ১০১ রানের বেশি লক্ষ্য দিতে পারেনি। দুই দিন হাতে রেখে ম্যাচটি জিতেছিল স্বাগতিকেরা।

 

এবার আসা যাক এ টেস্টের ভেন্যু জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামের পরিসংখ্যানে। এ মাঠে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৩৩১ রান তুলতে পেরেছে বাংলাদেশ। এ মাঠে এটি যেকোনো দলের চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ড। ২০১০ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে সে টেস্টে ৫১৩ রান তাড়া করতে নেমে হেরেছিল বাংলাদেশ। আর এ মাঠে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ৩১৭ রান তাড়া করে জিতেছে নিউজিল্যান্ড। এটি বাংলাদেশের মাটিতে চতুর্থ ইনিংসে যেকোনো দলের সর্বোচ্চ রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ডও। তৃতীয় দিন শেষেই ৩৭৪ রানের লিড পেয়েছে আফগানিস্তান। অর্থাৎ জিততে হলে ঘরের মাঠে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ রান তাড়া করার নজিরই গড়তে হবে সাকিবদের।

 

ঘরের মাঠে ড্র করা টেস্টে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ২৮৫/৫ তুলতে পেরেছে বাংলাদেশ। ২০০৫ সালে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে জিম্বাবুয়ের ৩৭৪ রান তাড়া করতে নেমে চতুর্থ ইনিংসে ১৪২ ওভার ব্যাট করে এ সংগ্রহ গড়েছিল বাংলাদেশ। আর জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে ড্র করা টেস্টে চতুর্থ ইনিংসে সর্বোচ্চ ২৭১/৩ রান তুলতে পেরেছে বাংলাদেশ। শ্রীলঙ্কার ৪৬৭ রান তাড়া করতে নেমে চতুর্থ ইনিংসে ৮৪.৪ ওভার ব্যাট করে ম্যাচটা ড্র করেছিল বাংলাদেশ। তবে এ ম্যাচে ড্রয়ের সম্ভাবনা নেই বললেই চলে। ধৈর্যের খোলস পরে হয় মারো নয় মরো!

Comment As:

Comment (0)